সুরমার ওপর ঝুলন্ত ব্রিজ প্রতিশ্রুতি হয়েই থাকলো মেয়াদ উত্তীর্ণ কিন ব্রিজে দেয়া হলো লাল রঙ

সিলেটবাসীর প্রাণের দাবি সিলেট নগরীতে সুরমা নদীর ওপর কিন ব্রিজের স্থলে ঝুলন্ত সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েও অর্থমন্ত্রী তা বাস্তবায়ন করতে ব্যর্থ হয়েছেন৷ ঝুলন্ত সেতু নির্মাণের ব্যাপারে পরপর দু’দফা টেন্ডার ডাকা হলেও পরে তা ভেস্তে যায়৷ এখন নির্বাচন সামনে রেখে মেয়াদ উত্তীর্ণ কিন ব্রিজ সংস্কার করে লাল রঙ দেয়া হয়েছে৷

জানা গেছে, ২০০১ সালের নির্বাচন সামনে রেখে তত্কালীন স্থানীয় এমপি এবং জাতীয় সংসদের স্পিকার হুমায়ুন রশিদ চৌধুরী কিন ব্রিজের স্থলে দৃষ্টিনন্দন একটি ব্রিজ স্থাপনের উদ্যোগ নেন৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার জীবদ্দশায় তা করা হয়নি৷ পরে বর্তমান চারদলীয় জোট সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রী এম সাইফুর রহমান ঝুলন্ত ব্রিজ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিলেও বাস্তবায়ন হয়নি৷ এ নিয়ে সিলেটবাসীর ক্ষোভের শেষ নেই৷ জানা যায়, সিলেট নগরীর প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত কিন ব্রিজ স্থাপিত হয় ১৯৩৬ সালে৷ ছয় দশকের বেশি সময়ের ব্যবধানে ব্রিজটি এখন ভারী যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী৷ সওজ ব্রিজটি মেয়াদ উত্তীর্ণ ঘোষণা করে ভারী যান চলাচলও বন্ধ করে দিয়েছে৷ খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সিলেট-১ আসনের এমপি প্রয়াত স্পিকার হুমায়ুন রশিদ চৌধুরীর উদ্যোগে ২০০১ সালে কিন ব্রিজের স্থলে ৩০৮ মিটার দীর্ঘ চার লেন বিশিষ্ট একটি নির্মাণের জন্য ৫৫ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়৷ ওই বছর জুনে এ প্রকল্পের টেন্ডার আহ্বানও করা হয়৷ তবে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর পুরো প্রক্রিয়া স্থগিত হয়ে যায়৷ জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রী প্রকল্পটিকে আরো আধুনিক করে বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেন৷ এ জন্য ২০০২ সালের ২৩ অক্টোবর একনেকের সভায় পূর্ববর্তী সরকারের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে সুরমা নদীর ওপর কিন ব্রিজের স্থানে স্টিল টাচ ব্রিজ-এর পরিবের্ত একটি ঝুলন্ত ব্রিজ বা ক্যাবল স্টেড ব্রিজ নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়৷ সূত্র জানায়, একনেকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তিন লেনের ঝুলন্ত সেতুটির দৈর্ঘ্য ৩০৮ মিটার ও প্রস্থ ১৮ মিটার হওয়ার কথা ছিল৷ সেতুর দু’ধারে তিন মিটার চওড়া ফুটপাথ এবং সাত মিটার চওড়া মোটরওয়ে রাখার পরিকল্পনা ছিল৷ ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০০২ সালে প্রথমবারের মতো টেন্ডার ডাকা হয়৷ এতে তিনটি প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়৷ কিন্তু পদ্ধতিগত ত্রুটির অজুহাতে টেন্ডার বাতিল করা হয়৷ এরপর ২০০৩ সালের আগস্টে আবারও টেন্ডার ডাকা হয়৷ সেবারও তিনটি প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়৷ এর মধ্যে ইন্দোনেশিয়া ও সুইটজারল্যান্ডের একটি যৌথ কম্পানি সর্বনিম্ন দরদাতা নির্বাচিত হয়৷ দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দরদাতা ছিল চায়নার একটি কম্পানি৷ পরে সর্বনিম্ন দরদাতা প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দেয়ার জন্য মন্ত্রণালয় ক্রয় কমিটিকে নিের্দশ দিলে রিভাইজড পিপি তৈরি করে তা একনেকে পাঠানো হয়৷ তবে একনেক কার্যাদেশের অনুমোদন দেয়নি৷ ২০০৪ সালের মাের্চ প্রকল্পটি বাতিল করা হয়৷ এ ঘটনার পর সিলেটে আন্দোলন গড়ে উঠে৷ রাজনৈতিক সংগঠন ছাড়াও বিভিন্ন সংগঠন হরতালসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে৷ এরপরও অর্থমন্ত্রী সিলেটে ঝুলন্ত ব্রিজ হবে বলে আশ্বাস দেন৷ এক পর্যায়ে ২০০৫ সালের জুলাইয়ে ৫ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয়ে কিন ব্রিজ নবায়ন ও সৌেন্দর্যবর্ধন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়৷ সওজ সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পের আওতায় ব্রিজের দু’পাশে দুটি তোরণ, সাির্কট হাউসের সীমানা দেয়াল, সুরমা নদীর দু’তীর সংরক্ষণ ও বাঁধ নির্মাণ, ব্রিজের দু’পাশে ফুটপাথসহ ড্রেন, ফোয়ারা নির্মাণ, রাস্তা সংস্কার ও চওড়া করা, পাির্কং প্লাজা, অত্যাধুনিক লাইটিং এবং দক্ষিণ প্রান্তে উন্মুক্ত মঞ্চ নির্মাণের কথা রয়েছে৷ ইতিমধ্যে প্রকল্পের ৯০ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে৷ কিন ব্রিজে দেয়া হয়েছে লাল রঙ৷ সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী সাইফুল আলম জানান, কিন ব্রিজ সিলেটের একটি ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা৷ দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় ব্রিজটি জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছিল৷ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নাসিম হোসাইন অর্থমন্ত্রীর দেয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ঝুলন্ত ব্রিজ না হওয়ার ব্যাপারে বলেন, এ ব্রিজটির স্বপ্ন দেখেছিলেন অর্থমন্ত্রী৷ আর কেউ নয়৷ তবে কারিগরিগত কারণে তা স্থাপন করা যায়নি৷ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ ন ম শফিকুল হক বলেন, এ ব্রিজ না করে সরকার সিলেটবাসীর সঙ্গে প্রতারণা করেছে৷ আওয়ামী লীগ সরকার কেন ব্রিজ করতে পারেনি এ প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে তিনি বলেন, সময়ের অভাবে সেটা করা যায়নি৷ নগরীর বিশিষ্ট আইনজীবী ইইউ শহীদুল ইসলাম বলেন, যে ক্ষমতায় যায় সেই প্রতিশ্রুতি দেয়, কাজ হয় না৷ আমাদের ব্রিজটিও হলো না৷ শুধু রঙ দেয়া হলো৷ এটা এক ধরনের ফাঁকিবাজি৷  সূত্রঃ যাযাদি

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: