ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের ১৫ বছর

গত এক দশকে মানুষের নিত্যদিনের জীবন যাপনে এবং সমাজের অগ্রগতিতে মৌলিক এবং বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে যে আবিস্কার সেই www বা ওয়াল্র্ড ওয়াইড ওয়েবের পনর বছর পূর্ন হল৻

বৃটেনের কবি ইয়ান ম্যাকমিলান ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের অবিশ্বাস্য প্রভাবের গুণকীর্তন করে একটি কবিতা লিখেছেন৻ তার অনুবাদ করলে এরকম দাঁড়ায় : “আগে, চিঠি মানেই এনভেলপে ভরা ঝুলির ভারে কাহিল এক পোষ্টম্যানের জন্য অপেক্ষা৻ গবেষনা মানে রাতদিন এক আধা অন্ধকার লাইব্রেরির ভেতর বসে গলদঘর্ম হওয়া৻ এখন ইন্টারনেটে মাউসের এক ক্লিকেই ঘরে এসে যায় বাজার৻ মুহুর্তে হাজার হাজার মাইল দুরে প্রিয় বন্ধুকে দেখানো যায় পোশা কুকুরের ছবি“৻

কি এই www, আর কিভাবে তা কাজ করে?

দিল্লীতে ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির কম্পিউটারের শিক্ষক ডঃ নিলাদ্রী চ্যাটার্জী বলছিলেন পৃথিবী জুড়ে যে তথ্যের সম্ভার সেটা পাওয়ার সহজতম উপায় ওয়াল্র্ড ওয়াইড ওয়েব৻ এটি কাজ করার জন্য যে অবকাঠামো সেটি ইন্টারনেট৻

ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব কিভাবে কাজ করে, সে সম্পর্কে ডঃ চ্যাটার্জী বলেন এর কতগুলো প্রযুক্তিগত পূর্বশর্ত রয়েছে৻

প্রথম, হাইপারটেক্সট৻ বিশেষ কম্যান্ডের সাহায্যে কোন একটি তথ্যের বা ফাইলের প্রধান বিষয়টিকে তুলে ধরার পদ্ধতিটাই হাইপারটেক্সট৻ এর মাধ্যমে একটা ফাইল থেকে আরেক ফাইলে যাওয়া যায়৻

আরেকটি বিষয়, ইউ আর এল৻ বিভিন্ন তথ্যের পৃথক ঠিকানা, যে ঠিকানা ব্যাবহার করে কাঙ্খিত তথ্যের ফাইলে ঢোকা যায়৻

অন্য বিষয় হচ্ছে, client server model যেটা ডঃ চ্যাটার্জীর কথায় প্রযুক্তির বিবেচনায় খুবই গুরুত্বপূর্ণ৻ Server এ তথ্য জমা থাকে৻ অন্য একটি কম্পিউটার থেকে কোন বিশেষ ফাইল চেয়ে সেই Server এ অনুরোধ আসে৻ Server তখন অনুরোধমত ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনুরোধকারীর কম্পিউটারে ফাইলটি পাঠিয়ে দেয়৻

ওয়াল্র্ড ওয়াইড ওয়েব কিভাবে কাজ করে, এভাবেই তার সহজ ব্যাখ্যা দিলেন ডঃ চ্যাটার্জী৻

গত ১৫ বছর আগে বৃটিশ বিজ্ঞানী টিম বার্নেস লী জেনিভার সার্ন ফিজিক্স ল্যাবরেটরিতে কার্যকরভাবে www র সূচনা করেন৻ সম্প্রতি এডিনবোরাতে এক সম্মেলনে তার এই আবিস্কারের ভবিষ্যৎ নিয়ে তাকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল?

উত্তরে টিম বার্নেস বললেন ভবিষ্যৎ ধারনা করা মুশকিল৻ “আমি প্রথমে যা যা ভেবেছিলাম হবে তার অনেক কিছুই হয়নি৻ আবার আমি যেটা স্বপ্নেও ভাবিনি এমন অনেক কিছুই হয়েছে“৻

তিনি বললেন তিনি যেটা চাইছেন যে ওয়েবে দুজন বা অনেক মানুষ একসাথে তাদের চিন্তা চেতনা, সৃষ্টিশীলতার বিকাশে একই সাথে কাজ করছে৻

“আমি চাইছি ইন্টারনেটে যেন দুজন বা আরো বেশী মানুষ দুরে বসে একইসাথে একটা বাড়ীর নকশা তৈরী করতে পারে৻ দুজনে মিলে একসাথে কোন বিষয়ে একটা লেখা লিখতে পারে“৻

ওয়াল্র্ড ওয়াইড ওয়েবের ভবিষ্যৎ নিয়ে দারুন আশাবাদি ডঃ নিলাদ্রী চ্যাটার্জী৻ বিশেষ করে symantic web নিয়ে যে গবেষনা হচ্ছে সেটার সাফল্য বিজ্ঞানের চচ্র্চাকে নতুন এক স্তরে নিয়ে যেতে পারে বলে তিনি মন্তব্য করলেন৻

ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি বললেন, এখন যে তথ্য ইনটারনেটে দেখা যায় কম্পিউটার সেগুলো ব্যাখ্যা করতে পারেনা৻ মানুষই সেগুলো নিজেরাই ব্যাখ্যা করে৻

“কিনতু সেটাকে যদি এমন স্তরে নেয়া যায় যে কম্পিটারই বুঝতে এবং ব্যাখ্যা করতে পারে যে তথ্যে কি রয়েছে, তাহলে গবেষনা কাজে অভূতপূর্ব অগ্রগতি হবে“৻

Source: http://www.bbc.co.uk/bengali/news/story/2006/08/060808_clickwk32.shtml

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: