প্রতিদ্বন্দ্বিতা শুধু সিলেট-১ আসনে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু

আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য, সদ্য সাবেক অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম সাইফুর রহমান৷ গত শুক্রবার রাতে হযরত শাহজালাল (রহ.)-এর মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে তিনি নির্বাচনী প্রচারাভিযান শুরু করেন৷ নির্বাচনী কার্যক্রমের অংশ হিসেবে নগরীর ব্যস্ততম জিন্দাবাজারে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির কার্যালয় ভাড়া নেয়া হয়েছে৷ এটি তার প্রধান নির্বাচনী কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হবে৷
এম সাইফুর রহমান গতকাল শনিবার বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন৷ তিনি জেলা ও মহানগর মহিলা দল এবং সিলেট সিটি করপোরেশনের সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কমিশনারদের সঙ্গে আলাদা বৈঠক করেন৷ এছাড়া তিনি বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে আসন্ন নির্বাচনের কৌশল নিয়ে আলোচনা করেছেন বলে জানা গেছে৷
জোট সরকার ক্ষমতা ছাড়ার পর এম সাইফুর রহমান গত শুক্রবার প্রথম সিলেট আসেন৷ তার আগমন উপলক্ষে দলীয় নেতাকর্মীরা বিমানবন্দরে শোডাউনের আয়োজন করে৷ গতকাল দিনভর সিলেটে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা শেষে বিকালে তিনি মৌলভীবাজারে যান৷ আজ রবিবার তিনি আবার সিলেটে আসবেন এবং দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচিতে যোগ দেবেন৷
ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানায়, শারীরিক অসুস্থতার কারণে সাইফুর রহমান এবার শুধু সিলেট-১ (সদর উত্তর-কোম্পানীগঞ্জ) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন৷ গতবার তিনি সিলেট-১ এবং মৌলভীবাজার-৩ (মৌলভীবাজার সদর-রাজনগর) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে দুটি আসনেই বিজয়ী হন৷ পরে তিনি মৌলভীবাজার আসনটি ছেড়ে দেন৷ এ আসনের উপনির্বাচনে এম সাইফুর রহমান তনয় এম নাসের রহমান প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হন৷
মর্যাদাপূর্ণ সিলেট-১ আসনে সাইফুর রহমান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে প্রায় ৪০ হাজারেরও বেশি ভোট পেয়ে বিজয়ী হন৷ এ আসনে তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য, সাবেক মন্ত্রী ও সচিব আবুল মাল আবদুল মুহিত৷ মুহিত এবারও দলীয় মনোনয়ন পাবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ অবশ্য সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি বদরউদ্দিন আহমদ কামরানও এ আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন পেতে জোর লবিং চালাচ্ছেন৷ এ লক্ষ্যে তিনি এ নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন স্থানে সভা-সমাবেশে অংশ নিচ্ছেন৷
কথিত আছে, এ আসন থেকে যে দলের প্রার্থী জয়লাভ করেন সে দল পরবর্তী সরকার গঠন করে৷ স্বাধীনতার পর থেকে এ রেওয়াজ চালু রয়েছে৷ ১৯৯১ সালের নির্বাচনে সিলেট বিভাগের ১৯টি আসনের মধ্যে একমাত্র এ আসনটি লাভ করে বিএনপি৷ সে সময় বিএনপি সরকারও গঠন করে৷ ১৯৯৬ সালে এ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সাবেক স্পিকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী৷ সে সময় সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ৷ ২০০১ সালের নির্বাচনে এখানে এম সাইফুর রহমান এখানকার এমপি নির্বাচিত হন৷ সরকার গঠন করে চারদলীয় জোট৷ এসব কারণে এ আসনটিতে প্রধান রাজনৈতিক দলের ঝোঁক খুব বেশি৷
সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=18130&issue=127&nav_id=7

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: