দখলদারদের উচ্ছেদ না করায় শায়েসত্দাগঞ্জ রেল জংশনের আধুনিকায়ন কাজ বন্ধ

অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ কার্যক্রম বিলম্বিত হওয়ায় শায়েসত্দাগঞ্জ রেল জংশনের আধুনিকায়ন কাজ ৬/৭ মাস যাবৎ বন্ধ রয়েছে। স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় ৫০/৬০টি অবৈধ দোকান উচ্ছেদের ব্যাপারে সংশিস্নষ্ট কতর্ৃপৰের গড়িমসির কারণে পরিকল্পিত পার্কিং এরিয়া নির্মাণ কাজ শুরম্ন করতে না পেরে সংশিস্নষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাদের কাজকর্ম গুটিয়ে রাখায় জংশনে যাত্রীসেবাও বিঘি্নত হচ্ছে। ২০০৫ সালের নভেম্বর মাসে প্রায় সাড়ে ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে শায়েসত্দাগঞ্জ রেল জংশনের রিমডেলিং কাজ শুরম্ন হয়। প্রায় ১ বছরের মধ্যে ১ নং পস্ন্যাটফরমের ৭৩১ ফুট পুরাতন এবং ২১৫ ফুট নতুনসহ মোট ৯৪৬ ফুট দীর্ঘ ছাদ জিঙ্ক এ্যালুমিনিয়াম শীট দ্বারা আকৃত করা ছাড়াও ৬০০ ফুট দীর্ঘ ২নং পস্ন্যাটফরম ও শেড নির্মাণ করা হয়। এছাড়া স্টেশন ভবনেরও ৯৫ ভাগ কাজ শেষ হয়। ফুট ওভারব্রিজ পুনঃ নির্মাণ এবং ৩ হাজার আরএফটি ড্রেনের মধ্যে ৮১৫ ফুট ড্রেন নির্মাণ করা হয়।

১নং পস্ন্যাটফরম প্রশস্থ করার আংশিক কাজ, নিরাপত্তা বেস্টনী এবং গভীর নলকূপ বসানোর কাজ অসমাপ্ত রয়েছে। তবে ১ নং পস্ন্যাট ফরমের ছাদের উচ্চতা বৃদ্ধির ব্যাপারে ত্রম্নটির অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরিকল্পনায় ১নং পস্ন্যাটফরমে নিরাপত্তা বেষ্টনী দেয়ার কথা থাকলেও ঠিকাদারের সাথে চুক্তিতে কেবলমাত্র ১০ বর্গমিটার বেষ্টনীর কথা থাকায় তা অবাসত্দব এবং বেষ্টনী না দেয়ারই সামিল বলে এলাকাবাসী জানায়। পরিকল্পিত ড্রেন নির্মাণের জন্য বাজেট বরাদ্দ বৃদ্ধিরও প্রয়োজন রয়েছে বলে জানা যায়। অভিযোগে প্রকাশ, স্টেশন ভবন সংলগ্ন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের ব্যাপারে বার বার নোটিস দেয়া সত্ত্বেও স্থাপনাগুলো সরিয়ে নেয়া হয়নি। প্রাথমিকভাবে ২/১টি ভবনের মালিক স্থাপনা ভেঙ্গে নেয়ার তৎপরতা শুরম্ন করলেও বর্তমানে স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার কাজ বন্ধ রয়েছে। অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে এলাকাবাসীও দীর্ঘদিন যাবৎ আন্দোলন করে আসছেন। কিন্তু অবৈধ দখলকারীরা নানাভাবে উচ্ছেদ কার্যক্রম ব্যাহত করতে সৰম হয়। একটি সূত্র জানায়- অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকারীরা বিপুল অর্থ উৎকোচ প্রদান করে পার্কিং এরিয়া নির্মাণের নক্সা পরিবর্তনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। শায়েসত্দাগঞ্জ রেল জংশনের ঊধর্্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (পূর্ত) মোঃ আব্দুলস্নাহ জানান, স্টেশনের দৰিণে পরিকল্পিত পার্কিং এরিয়া নির্মাণের জন্য ১৬ হাজার বর্গফুট ভূমি প্রয়োজন। এ ব্যাপারে বিভাগীয় প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। প্রকাশ- ঢাকা ডিভিশনাল এস্টেট অফিসার পার্কিং এরিয়ার ভূমি পুনরম্নদ্ধার সংক্রানত্দ ব্যাপারে ২ দিন শায়েসত্দাগঞ্জ পরিদর্শন করে গেলেও কোন কার্যকর পদৰেপ গ্রহণের খবর পাওয়া যায়নি।
সূত্রঃ http://www.ittefaq.com/get.php?d=07/02/05/w/n_zzmrtz

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: