সিলেটে জামায়াতের গডফাদার ও ক্যাডাররা বহাল তবিয়তে

সিলেটে জামায়াতে ইসলামীর গডফাদার ও দুর্ধর্ষ শিবির ক্যাডাররা এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে। এক সময়ের দুর্ধর্ষ শিবির ক্যাডার গাজী নাসির ছাড়া আর কেউই এখনো যৌথ বাহিনীর হাতে ধরা পড়েননি। ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে অর্জন করা বিত্ত-বৈভব নিয়ে বহাল তবিয়তে আছেন তারা। গত পাঁচটি বছর তারা সিলেটে ত্রাসের রাজত্দ্ব কায়েম রেখেছিলেন। সিলেটে শত শত একর সরকারি ভূমি দখল থেকে শুরু করে নামে-বেনামে অঢেল অর্থ-সমঙ্দের মালিক হয়েছেন তারা। এদের অনেকের বিরুদব্দে জঙ্গি তৎপরতায় অর্থায়ন ও মদদ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। গডফাদারদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে জোট সরকারের ৫ বছর সিলেটে শিবির ক্যাডাররা ছিলেন বেপরোয়া। দুটি হত্যাকা-সহ বিরোধী দলের ওপর অসংখ্যবার সশস্ট্প হামলা চালিয়েছেন তারা। সর্বশেষ গত ১৩ নভেল্ফ্বর সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় ১৪ দলের অবরোধ কর্মসহৃচিতে আগ্গেম্নয়াস্ট্প নিয়ে হামলা চালান শিবির ক্যাডাররা।
জানা যায়, সিলেট মহানগর জামায়াতের আমির ডা. শফিকুর রহমান, সিলেট জেলা দক্ষিণ জামায়াতের আমির মাওলানা হাবিবুর রহমান, জামায়াত নেতা সাবেক সাংসদ মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী, হাফিজ আবদুল হাই হারুন, ডা. সায়েফ আহমদ, মাওলানা আবদুল হাল্পম্নান ও সাবেক শিবির সভাপতি এহসানুল মাহবুব জুবায়ের জামায়াত-শিবিরের প্রকাশ্য-অপ্রকাশ্য সব তৎপরতার নিয়ন্পক। বিভিল্পম্ন সহৃত্র জানায়, গডফাদারদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে জামায়াত নেতা ও সাবেক দুর্ধর্ষ শিবির ক্যাডার জিয়াউদ্দিন নাদের, জয়নাল আবেদীন, মাওলানা লোকমান আহমদ, সাইফুলল্গাহ আল হোসাইন এখন সিলেটের অপ্রতিরোধ্য ভূমিদসু্য ও ডেঞ্জারম্যান হিসেবে পরিচিত।
জিয়াউদ্দিন নাদের : সিলেটের সাবেক দুর্ধর্ষ শিবির ক্যাডার জিয়াউদ্দিন নাদের এখন জামায়াত নেতা। তবে ভূমিদসু্য হিসেবেই তিনি বেশি পরিচিত। সিলেটের ছাত্র রাজনীতির সবচেয়ে ভয়ঙ্কর হত্যা মিশনে নেতৃত্দ্ব দিয়েছিলেন তিনি। ১৯৮৮ সালে নগরীর শাহী ঈদগাহ এলাকায় জাসদ ছাত্রলীগের নেতা মনির, তপন ও জুয়েল হত্যাকা-ের মাধ্যমে তার উত্থান। নাদের ছাত্রশিবিরের রাজনীতিতে যুক্ত হয়েই দুর্ধর্ষ ক্যাডার হয়ে ওঠেন। ‘৯৩ সালে তার নেতৃত্দ্বে শিবির ক্যাডাররা ওসমানী মেডিকেল কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি নিয়াজ ও সহ-সভাপতি আদনানের ওপর হামলা চালিয়ে তাদের গুরুতর আহত করেন। সন্পাসী কর্মকা-ের জন্য একাধিকবার জেলে গেলেও বেরিয়ে এসে স্ট্বরূপে আবিভর্ূত হন নাদের।
ছাত্র রাজনীতিতে যুক্ত থাকা অবস্ট্থায়ই নাদের নিজস্ট্ব ক্যাডার বাহিনী তৈরি করে বিরোধপহৃর্ণ জায়গা দখল এবং জাল দলিলের মাধ্যমে অন্যের জায়গা হাতিয়ে নিতে থাকেন। নাদের বাহিনীর রোষানলে পড়ে অনেক নিরীহ মানুষকেই নিঃস্ট্ব হতে হয়েছে। নাদের সিন্ডিকেটের টার্গেটে পড়ে সিলেটের আলোচিত ডাকাত মজিদের পরিবারও শেষ হয়ে গেছে বলে অভিযোগ আছে। মজিদ পরিবারের ১০০ কোটি টাকার ভূসল্ফঙ্ত্তি আত্দ্মসাতের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে নাদের বাহিনী। এরই মধ্যে ওই সিন্ডিকেট মজিদ পরিবারের কয়েক কোটি টাকার ভূসল্ফঙ্ত্তি জবরদখল করে নিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দখল করা জায়গায় গড়ে তোলা হয়েছে গাজী বোরহান উদ্দিন আবাসিক প্রকল্কপ্প।
মাওলানা লোকমান : দুর্ধর্ষ শিবির ক্যাডার থেকে এখন কোটিপতি জামায়াত নেতা মাওলানা লোকমান আহমদ। স্ট্থগিত হয়ে যাওয়া ২২ জানুয়ারির নির্বাচনে সিলেট-৩ (দক্ষিণ সুরমা-ফেঞ্চুগঞ্জ) আসনে চারদলীয় জোটের মনোনয়ন না পেয়ে স্ট্বতন্প প্রার্থী হয়ে অনেক টাকা-পয়সা খরচ করেন তিনি। ভূমি দখল, জঙ্গি কানেকশনসহ নানা অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদব্দে। রয়েছে একাধিক মামলাও। জেলও খেটেছেন। জরুরি অবস্ট্থা জারির পর যৌথ বাহিনী তার বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে; কিন্তু তাকে ধরতে পারেনি।
১৯৮৮ সালে লোকমান যোগ দেন ছাত্রশিবিরে। একপর্যায়ে মদনমোহন কলেজ ছাত্রশিবিরের সভাপতি হন। ধীরে ধীরে নেটওয়ার্ক গড়ে তোলেন সিলেট সদর, দক্ষিণ সুরমা ও ফেঞ্চুগঞ্জ এলাকায়। ১৯৯৩ সালে এক রাতে রিকাবীবাজারে ওসমানী মেডিকেল কলেজ ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ডা. নিয়াজ মোহাইমিন, সহ-সভাপতি ডা. আদনানের ওপর নৃশংস হামলা চালানো হয় তার নেতৃত্দ্বে। ১৯৯৫ সালে সিলেট পলিটেকনিক ইনসদ্বিটিউট ছাত্রদলের ঘুমনস্ন নেতাকর্মীদের ওপরও লোকমানের নেতৃত্দ্বে হামলা চালানো হয়। পরে পুলিশ লোকমানের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ অস্ট্প উদব্দার করে। ১৯৯৭ সালে তার নেতৃত্দ্বে এমসি কলেজ ছাত্রদল সভাপতি মীর মোশাররফ হোসেনকে কলেজ হোসদ্বেল থেকে ধরে এনে হাত-পায়ের রগ কেটে দেওয়া হয়। ভূমিদখল, এলাকায় সালিশ বৈঠকের নামে আর্থিক সুবিধা আদায়সহ বিভিল্পম্ন অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদব্দে।
জয়নাল আবেদীন : এককালের দুর্ধর্ষ শিবির ক্যাডার জয়নাল আবেদীন এখন ভূমিখেকো জয়নাল নামেই পরিচিত। রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে দক্ষিণ সুরমায় বিপুল পরিমাণ সরকারি জমি ও ব্যক্তি মালিকানাধীন ভূমি দখল করে গড়ে তুলেছেন সোনারগাঁ আবাসিক প্রকল্কপ্প। জানা যায়, নব্বইয়ের দশকে জয়নাল আবেদীন তার চাচা ডা. আবদুল মতিনের চেল্ফ্বারে এটেনডেন্ট হিসেবে কাজ করতেন। অথচ এখন তিনি কাঁড়ি কাঁড়ি টাকার মালিক।
১৯৯০ থেকে ‘৯৫ সাল পর্যনস্ন নগরীতে শিবিরের বিভিল্পম্ন অপারেশনে তিনি অগ্রণী ভূমিকা রাখেন। চারদলীয় জোট ক্ষমতায় আসার পর জড়িয়ে পড়েন ব্যবসায়। আরো কয়েকজনকে নিয়ে দক্ষিণ সুরমার লালমাটিয়া এলাকার জলাভূমি দখলে নামেন। এলাকার গরিব মানুষের কাছ থেকে নামমাত্র দামে কিছু জমি কিনে আশপাশের সরকারি বিল-নালা ও খাল ভরাট করে গড়ে তোলেন সোনারগাঁ আবাসিক প্রকল্কপ্প। এ প্রকল্কেপ্পর নামে প্রবাসীসহ বিভিল্পম্ন জনের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। জয়নাল নিজ বাড়ি জৈনস্নাপুরের দরবস্টেস্নর খাজার মোকামে একটি বাজারের নামে প্রায় ১৫ বিঘা জমি দখল করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। জয়নাল আবেদীনের ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি, জায়গা দখল ও সন্পাসী কর্মকা-ের বিরুদব্দে ব্যবস্ট্থা নেওয়ার দাবি জানিয়ে কিছুদিন আগে যৌথ বাহিনীর কাছে লিখিত আবেদন করেছেন দক্ষিণ সুরমাবাসী।
সাইফুলল্গাহ আল হোসাইন : শিবির ক্যাডার সাইফুলল্গাহ আল হোসাইন এক সময় অর্থাভাবে অন্যের বাড়িতে থেকে লেখাপড়া করতেন। এখন তিনি কোটিপতি। মাত্র ৫ বছরে তার অকল্কপ্পনীয় উত্থান ঘটেছে। তার বিরুদব্দে সরকারি-বেসরকারি জায়গা, হিন্দু সমঙ্্রদায়ের সল্ফঙ্ত্তি ও খাল-বিল দখল, সন্পাসী ও অস্ট্পধারীদের লালন, জঙ্গি কানেকশন, পাহাড়-টিলা কাটা, নদী থেকে অবৈধ ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে বালু উত্তোলনসহ নানা অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে।
১৯৯৬ সালে এসএসসি পরীক্ষা চলাকালে কাসিম আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের ওপর তার নেতৃত্দ্বে হামলা চালানো হয়। এর পর সাইফুলল্গাহ গড়ে তোলেন নিজস্ট্ব সন্পাসী বাহিনী। তার নেতৃত্দ্বে ওই বাহিনী ‘৯৯ সালের ১১ জুলাই ফেঞ্চুগঞ্জ ডিগ্রি কলেজে তা-ব চালায়। ছাত্রদলের নেতাকর্মী ও নিরীহ কলেজ ছাত্রসহ ১০ জনের হাত-পায়ের রগ কেটে দেওয়া হয়। ওই বছর ৩০ সেপ্টেল্টল্ফ্বর ইলাশপুর ব্রিজে বরযাত্রীদের গাড়িতে হামলা চালায় সাইফুলল্গাহ বাহিনী। লুট করে মালপত্র। তার নেতৃতে ফেঞ্চুগঞ্জ-মাইজগাঁও এলাকায় সরকারি জায়গা দখল করে মাদ্রাসা এবং ইসলামী পাঠাগার দখল করে বানানো হয়েছে দলীয় অফিস।
সূত্রঃ http://www.shamokal.com/details.php?nid=51817

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: