হবিগঞ্জে বিএনপি নেতা গউছের বাড়ি ও নরসিংদীতে জুটমিল থেকে হরিণ উদ্ধার

হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও পৌর চেয়ারম্যান জিকে গউছের বাসা থেকে যৌথবাহিনী ৩ এবং নরসিংদীর আলীজান জুটমিল থেকে র্যাব ৮টি হরিণ উদ্ধার করেছে।
হবিগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও পৌর চেয়ারম্যান জিকে গউছের বাড়ি থেকে তিনটি মায়া হরিণ উদ্ধার করেছে যৌথবাহিনী। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ৩টায় যৌথবাহিনী জিকে গউছের শায়েসত্দানগরের বাসা থেকে এ তিনটি হরিণ উদ্ধার করে। এদিকে, যৌথবাহিনী ৩ ঘণ্টাব্যাপী এক পৃথক অভিযানে জিকে গউছের দুই নং পুলের খামারবাড়ি থেকে দুই কোটি টাকা মূল্যের সরকারি বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার করেছে। উদ্ধারকৃত মালামালের মধ্যে সড়ক ও জনপথ বিভাগ, এলজিইডির বেশ কয়েকটি কালভার্টের ইস্পাত সামগ্রী, রেলওয়ের লৌহনির্মিত শিক, স্লিপার, রড, বিদু্যৎ উন্নয়ন বিভাগের লোহার পোল (খাম্বা), পৌরসভার সোডিয়াম লাইট, ডাক ও তার বিভাগের বিভিন্ন মালামাল, উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বৈদু্যতিক বাল্ব রয়েছে। ১০ একর ভূমির সীমানাবেষ্টিত এ খামারবাড়িতে একটি নর্তকিখানার আলামতও পাওয়া যায়।
যৌথবাহিনীর অভিযানে নেতৃত্ব দেন হবিগঞ্জের সেনা অধিনায়ক লে. কর্নেল মনির\”ল ইসলাম আকন্দ, র্যাবের ফ্লাইট লে. আবুল বাশার। এ সময় জেলা ছাত্রদল সভাপতি পলাতক মহিবুল ইসলাম শাহিনের ভাগ্নে ছাত্রদল নেতা আবদুল্লাহ আল মামুনের বহুলার গ্রামের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ঢাকা মেট্রো-চ-১১৫৬১০ নম্বরের একটি মাইক্রোবাস, সড়ক বিভাগ ও রেলওয়ের কোটি টাকা মূল্যের পাইপ এবং লৌহসামগ্রী উদ্ধার করে।
জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও পৌর চেয়ারম্যান জিকে গউছ গত ১৫ জানুয়ারি যৌথবাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হন। তাকে প্রথমে ১ মাস ও পরবতর্ী সময়ে ৩ মাসের আটকাদেশ দেওয়া হয়। জিকে গউছের ছোট ভাই জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রচার সম্পাদক গোলাম মওলাকেও ১৬ জানুয়ারি গ্রেপ্তার করা হয়। তার অপর ভাই জিকে গফফার এখনো পলাতক রয়েছে।
নরসিংদী প্রতিনিধি জানান, গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় র্যাব-১১ এর সদস্যরা নরসিংদীর আলীজান জুট মিল থেকে ৮টি হরিণ উদ্ধার করেছে। মিলের মালিক নূর\”ল ইসলাম পাটোয়ারি এসব হরিণ অবৈধভাবে আমদানি ও পালন করছিলেন। উদ্ধারকৃত হরিণগুলোর মধ্যে ৫টি চিত্রা ও ৩টি মঈশা হরিণ বলে জানা গেছে।
র্যাব সূত্রে জানা গেছে, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে র্যাব সদস্যরা সন্ধ্যায় আলীজান জুটমিলে তল্লাশি চালিয়ে মিলের অভ্যনত্দরে ৮টি হরিণ খুঁজে পায়। তারা বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনের অধীনে হরিণগুলো জব্দ করে। জব্দকালে মিল কতর্ৃপক্ষ হরিণগুলোর কোনো বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। রাতেই হরিণগুলো নরসিংদী থানা পুলিশের কাছে হসত্দানত্দর করার কথা রয়েছে।
সূত্রঃ http://bhorerkagoj.net/online/news.php?id=49630&sys=1

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: